মধ্যপ্রাচ্য থেকে হিন্দু উগ্রপন্থীদেরকে বহিষ্কারের আহ্বান সউদী স্কলারের

প্রকাশিত: ১২:৫৪ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০২০

ভারতের মুসলিম সংখ্যালঘুদের উপরে হিন্দু কট্টরপন্থীদের ক্রমবর্ধমান ঘৃণ্য হামলা ও অত্যাচারের প্রেক্ষিতে সউদী আরবের এক স্কলার বলেছেন যে, জঙ্গি হিন্দুরা মুসলমানদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়াচ্ছে এবং মুসলমানদের বিরুদ্ধে অপরাধ করছে তাদের গালফ উপসাগর থেকে বহিষ্কার করা উচিত।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে ক্ষমতাসীন ডানপন্থী বিজেপি সরকারের অনুগত হিন্দুরা করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে দেয়ার জন্য মুসলমানদের দোষারোপ করায় ভারতে মুসলমানদের উপরে এই ধরনের অত্যাচার বেড়েছে। ২০০২ সালের গুজরাটে দাঙ্গায় দুই হাজারেরও বেশি মুসলমানকে হত্যা করার ঘটনায় সেখানকার তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী মোদিকে আমেরিকায় নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। তার সমর্থকরা ভাইরাসটিকে ‘করোনার জিহাদ’ বলে অভিহিত করেছেন এবং এই মহামারীটি হিন্দুদের সংক্রামিত ও বিষাক্ত করার জন্য মুসলমানরা ষড়যন্ত্র বলে মিথ্যা অভিযোগ ছড়িয়ে দিয়েছে।

শেখ আবিদি জহরানি মধ্যপ্রাচ্য, বিশেষ করে উপসাগরীয় দেশগুলোর সরকারকে চরমপন্থী হিন্দু আদর্শের প্রতি সহানুভূতি দেখানোর বিরুদ্ধে চাপ প্রয়োগ করার আহ্বান জানিয়ে এই শত্রুতার জবাব দিয়েছেন। তার অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে লিখেছেন, জহরানী ‘সেন্ড_হিন্দুত্ত্বা_ব্যাক_হোম’ হ্যাশট্যাগ দিয়ে শেয়ার করেছেন, ‘আমি সকল সম্মানিত অনুসারীকে জিসিসিতে কর্মরত এবং #ইসলাম #মুসলিম বা আমাদের প্রিয় নবী মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়িয়ে দিতে থাকা সমস্ত জঙ্গি হিন্দুদেরকে তালিকাভুক্ত করার প্রস্তাব দিচ্ছি।’

একটি পৃথক টুইটে তিনি যোগ করেছেন, ‘উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলোতে কয়েক মিলিয়ন ভারতীয় বাস করে, যাদের মধ্যে অনেকেই কোভিড-১৯ আক্রান্ত, তাদের ধর্মবিশ্বাস নির্বিশেষে বিনা খরচে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে যখন হিন্দুত্ববাদী ও সন্ত্রাসবাদী দলগুলো মুসলিম নাগরিকদের বিরুদ্ধে অপরাধ করছে।’

তার এই টুইটের জবাবে, অনুসারীরা মধ্য প্রাচ্যে থেকে বা উপসাগরভিত্তিক সংস্থাগুলোর হয়ে কাজ করার সময় হিন্দু কট্টরপন্থী মতাদর্শ প্রচারকারী ব্যক্তি ও গোষ্ঠীর স্ক্রিনশট শেয়ার করেছেন। আবদুল হাই নামের একজন অনুসারী এক ভারতীয় কর্মচারীর স্ক্রিনশট পোস্ট করেন যিনি ‘কুয়েত এয়ারলাইন্সে কাজ করে এবং মুসলমানদের ঘৃণা করে’। ওই হিন্দু উগ্রবাদী বলেছিলেন যে, ‘আক্রান্ত বেশিরভাগ লোক মোল্লা এবং হিন্দুরা শান্তিতে বসবাস করছে।’ সূত্র: মিডল ইস্ট মনিটর, ইনকিলাব।