বাবা”র খেদমত থেকে বঞ্চিত হলাম- ডাঃ রুহুল আমিন

প্রকাশিত: ৫:০৩ অপরাহ্ণ, মে ১৭, ২০২১

 মো. আ: জব্বার :

বাবা-মা”কে দেখার জন্যই আমি নিয়মিত বাড়িতে আসি। আজ আমার বাবা আমাদেরকে ছেড়ে চিরদিনের জন্য চলে গেলেন। আমি বাবার খেদমত করা থেকে বঞ্চিত হলাম। আমাকে নিয়ে আমার বাবা অনেক স্বপ্ন দেখতেন, বাবার স্বপ্ন পুরোপুরি পূরণের আগেই বাবা চলে গেলেন- আমার বাবার জন্য সকলের নিকট দোয়া চাই। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ মোহাম্মদ রুহুল আমিন (রাফিন) তার বাবার জানাযা নামাজের পূর্বে এসব কথা বলেন। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বাক্তা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক (অব.), ডাঃ মোহাম্মদ রুহুল আমিন (রাফিন) এর পিতা আলহাজ্ব মৌ: আবু তাহের (৭২) সোমবার (১৭ মে) ভোর ৪টার টার দিকে দক্ষিণপাড়া নিজবাড়ীতে ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না নিল্লাহি ….. রাজিউন। মরহুমের জানাযা নামাজ ঐদিন বেলা ০৩ ঘটিকায় বাক্তা দক্ষিণপাড়া ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। জানাযা নামাজের পূর্বে মরহুমের স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন ফুলবাড়িয়া উপজেলার সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান ফজলুল হক শামীম, বাক্তা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আতিকুর রজমান, নিশ্চিন্তপুর ঈদগাহ মাঠের সাবেক ইমাম মৌ. মো. আব্দুর রাজ্জাক, সমাজসেবক মো. আ. কদ্দুছ সরকার, পরিবারের পক্ষে মরহুমের ছোট ভাই ইউপি সদস্য আ. খালেক প্রমূখ। জানাযা নামাজে ইমামতি করেন মরহুমের বড় ছেলে ডাঃ মোহাম্মদ রুহুল আমিন (রাফিন), পরিচালনায় মো. অলিউল্লাহ। জানাযা শেষে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হয়।

এ ছাড়াও জানাযা নামাজে জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ সহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার লোকজন অংশ নেন। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে ২ মেয়ে সহ অসংখ্য আত্মীয় স্বজন রেখেগেছেন। তিনি ডায়াবেটিকস ও হার্টের রোগে ভোগছিলেন।

শোক প্রকাশ :

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ মোহাম্মদ রুহুল আমিন (রাফিন) এর পিতার মৃত্যুতে বাক্তা ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ ফজলুল হক মাখন, ফুলখড়ি পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক আলহাজ্ব নূরুল ইসলাম খান, সাংবাদিক মো. আ. জব্বার পৃথক বিবৃতিতে মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন।